ঢাকা, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪,
সরকার অনুমোদিত নিবন্ধন নম্বর ১৯১
Reg:C-125478/2015

সাভানা ইকো রিসোর্ট পরিদর্শন করল দুদক

ডেস্ক রিপোর্ট


প্রকাশ: ৬ জুন, ২০২৪ ০৯:৪২ পূর্বাহ্ন | দেখা হয়েছে ২৮ বার


সাভানা ইকো রিসোর্ট পরিদর্শন করল দুদক

গোপালগঞ্জ: জমি ও সড়ক দখলসহ অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে অভিযুক্ত পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যদের নামে গোপালগঞ্জে করা সাভানা ইকো রিসোর্ট অ্যান্ড ন্যাচারাল পার্ক পরিদর্শন করেছে দুনীতি দমন কমিশনের (দুদক) দুটি প্রতিনিধি দল। এসময় গণমাধ্যম কর্মীদের ভেতরে প্রবেশ করতে বাধা দেয় পার্ক কর্তৃপক্ষ।

 

বুধবার (৫ জুন) সন্ধ্যায় গোপালগঞ্জ ও মাদারীপুর দুনীতি দমন কমিশনের দুটি প্রতিনিধি দল সাভানা ইকো রিসোর্ট অ্যান্ড ন্যাচারাল পার্ক পরিদর্শনে আসে। মাদারীপুর দুদকের উপ-পরিচালক মো. আতিকুর রহমান আট সদস্যের প্রতিনিধি দলের এবং গোপালগঞ্জের সহকারী পরিচালক বিজন কুমার রায় সাত সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। পরে প্রতিনিধি দল দুটি পার্ক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেন ও পার্কের বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করে।
 
দুদকের কর্মকর্তারা বলেন, পার্কটি বিশেষ নজরদারিতে রাখা হয়েছে। তবে তারা এর বেশি কিছু বলতে রাজি হননি।

এদিকে দুদক কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করতে গেলে গেটের সামনে গণমাধ্যম কর্মীদের বাধা দেয় পার্ক কর্তৃপক্ষ। এর আগে গত সোমবার থেকে সার্ভার জটিলতার কথা বলে পার্কটি বন্ধ ঘোষণা করে পার্ক কর্তৃপক্ষ।  

এর আগে, আট থেকে ১০টি ট্রাকে করে রাতের আঁধারে গুরুত্বপূর্ণ ও দামি মালামাল সরিয়ে নেয় পার্ক কর্তৃপক্ষ। আদালত মালামাল ক্রোকের আদেশ দেওয়ার পর এসব মালামাল সরিয়ে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এমনকি খামার থেকে গরুগুলো ট্রাকে করে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। গোপালগঞ্জে বৌলতলী পুলিশ ফাঁড়ির আইসি (পরিদর্শক) আমিনুল ইসলামের সহায়তায় এসব গরু ও মালামাল সরিয়ে নেওয়া হয় বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন।  

বিগত ২০১৫ থেকে ২০২০ সালে র‌্যাবের মহাপরিচালক এবং ২০২০ সাল থেকে ২০২২ পর্যন্ত পুলিশের আইজিপি থাকাকালে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার বৈরাগীটোল গ্রামে ৬২১ বিঘা জমির ওপর গড়ে তোলেন সাভানা ইকো রিসোর্ট অ্যান্ড ন্যাচারাল পার্ক।  


   আরও সংবাদ